হার্ট সুস্থ রাখা চাই

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
  • 36
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
    36
    Shares

হার্ট সুস্থ রাখা চাই

হার্ট বা হৃৎপিন্ডের রোগ ইদানীং আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে গেছে। এ জন্য জেনেটিক বা বংশগত কারণ, অস্বাস্থ্যকর খাদ্যভ্যাস, কায়িক শ্রমের অভাব, টেনশন বা দুশ্চিন্তা, মেয়েদের বেশি বয়সে বিয়ে করা ও সন্তান নেয়া, ধূমপান, ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ- এসবকে দায়ী করা হচ্ছে আশার কথা হলো- একমাত্র জেনেটিক বা বংশগত কারণ ছাড়া বাকি সবগুলোকে নিয়ন্ত্রণে রেখে বা পরিবর্তন করে হার্ট সুস্থ রাখা সম্ভব।

হার্টের অসুখগুলোকে মূলত তিনভাগে ভাগ করা যায়

করোনারি বা হার্টে রক্ত সরবরাহকারী ধমনিতে ব্লক বা চিকন হয়ে যাওয়ার কারণে উদ্ভূত সমস্যাগুলো যেমন- মায়োকার্ডিয়াল ইনফার্কশন, আনস্টেবল এনজিয়া, হার্টব্লক অ্যরিদমিয়া ইত্যাদি।

হার্টের ভাল্বের সমস্যা যেমন- মাইট্রাল, স্টেনোসিস, অ্যায়োটিক স্টেনোসিস, মাইট্রাল রিগারজিটেশন, পালমোনারি স্টেনোসিস ইত্যাদি।

জন্মগত ত্রুটি যেমন- পর্দায় ছিদ্র (এএসডি) টেট্রালজি অব ফ্যালোট (এক ধরণের নীলাভ হার্টের রোগ), পিডিএ ইত্যাদি।
রক্তের কোলেস্টেরল কমিয়ে দেয়। বাদাম, মাছের তেল, সামুদ্রিক মাছ, সূর্যমুখী তেল ইত্যাদি এজন্য ভালো। আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের মতে সপ্তাহে অন্তত ১০০ গ্রাম বাদাম খাওয়া উচিত।

খাদ্যভ্যাস পরিবর্তন:

ব্যস্তজীবনে কর্মতৎপরতার সাথে তাল মিলিয়ে ফাস্ট লাইফের সাথে বাড়ছে ফাস্টফুড খাবারের প্রতি মানুষের আগ্রহ। কিন্তু এ খাবারগুলো মুখরোচক হলেও হার্টের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। মাঝে মধ্যে খাওয়া যাবে কিন্তু প্রতিদিন খাওয়া চলবে না। এর পরিবর্তে দৈনিক খাদ্য তালিকায় শাকসবজি, ফাইবারযুক্ত খাবার ও অন্তত একটি ফল রাখতে হবে।

ধূমপান পরিত্যাগ

হার্ট অ্যাটাকের ৫০ শতাংশ ব্যক্তিই ধূমপায়ী। ধূমপান অ্যাথোরোসক্লোরোসিসকে সরাসরি প্রভাবিত করে এবং ধমনিগুলোকে শক্ত করে দেয়। ধূমপান পরিহার করার সাথে সাথে পান, জর্দা, তামাক ইত্যাদিও কমিয়ে দিন।
ব্যায়াম করুন নিয়মিত

মানুষের শারীরিক শ্রম ও চলাফেরা অনেক কমিয়ে দিয়েছে উন্নত প্রযক্তির ব্যাপক ব্যবহার। এখন প্রায় সব কাজই টেবিল- চেয়ারে বসে সম্পন্ন করতে হয়। কারো সাথে দেখা করতে না গিয়ে মোবাইল ফোনে বা মেইল করে কাজ সেরে ফেলি, অল্প দূরত্বে যেতে হলেও গাড়ি ব্যবহার করি। ফলে চর্বি সঞ্চিত হতে থাকে, যা করোনারি ধমনিতে অ্যাথোরোসক্লোরিসিস করে। অতএব দৈনিক অন্তত ৩০ মিনিট হাঁটার অভ্যাস করতে হবে, লিফটের পরিবর্তে সিঁড়ি ব্যবহার করতে হবে, লিফটের পরিবর্তে সিঁড়ি ব্যবহার করতে হবে, অল্প দূরত্বে হেঁটে যেতে হবে ও শিশুদের কম্পিউটার গেমসের পরিবর্তে খেলাধুলায় উৎসাহিত করতে হবে।

টেনশন কমান

উন্নত জীবনযাত্রার সাথে সাথে বাড়ছে টেনশন বা দুশ্চিন্তা। এর সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস ও হার্টের সমস্যা। জীবনকে পজিটিভ দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে দেখা শুরু করতে হবে, দুশ্চিন্তা থেকে দূরে থাকতে হবে। অবসর সমসয়ে বই পড়া, বাগান করা, গান শোনা ও সমাজের কল্যাণকর কোনো কাজে ভূমিকা রাখা ইত্যাদি করা যেতে পারে।

কাজের ফাঁকে পাঁচ-দশ মিনিট বিশ্রাম নিতে হবে। দৈনিক সাত-আট ঘন্টা ঘুমাতে হবে। সুন্দর দাম্পত্য জীবন বজায় রাখতে হবে। পরিবারের সবার সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে হবে। যাদের এখানো হার্টের সমস্যা নেই। কিন্তু বংশে অল্প বয়সে (৪০ এর নিচে) হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের ইতিহাস আছে তাদের সতর্ক থাকতে হবে। অনেক ক্ষেত্রেই কোনো লক্ষণ প্রকাশ ছাড়াই তাদের হার্টের অসুখ দেখা দিতে পারে।

যাদের হার্টের সমস্যা আছে এবং শরীরিক অন্য সমস্যাও রয়েছে উচ্চ রক্তচাপ থাকলে হার্টকে অতিরিক্ত কাজ করতে হয়, ফলে হার্ট ধীরে ধীরে বড় হতে থাকে। এক সময় বড় হওয়া সত্ত্বেও শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় রক্ত পাম্প করার ক্ষমতা নষ্ট হয়ে হার্ট বন্ধ হয়ে যাওয়া। হয়ে যায়। অতএব, যাদের উচ্চ রক্ত চাপ ধরা পড়েছে তাদের উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

নিয়মিত ওষুধ খেতে হবে

ডায়াবেটিস বর্তমানে হার্টের সমস্যার সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ কারণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। অতএব, যাদের ডায়াবেটিস ধরা পড়েছে, তাদের জীবনযাত্রার পরিবর্তনে ওষুধ বা ইনসুলিন নেয়ার মাধ্যমে ব্ল্যাড সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

উচ্চ রক্তচাপের ডায়াবেটিস ও হার্টের সমস্যার রোগীরা যা খেতে পারবে না

০১. খাসির গোশত ও চর্বিযুক্ত গরুর গোশত
০২. মগজ, কলিজা ও ডিমের কুসুম
০৩. চিংড়ি মাছের মাথা
০৪. নারিকেল
০৫. মাখন, ঘি, দুধের সর
০৬. কেক, পেস্টি, সেমাই, পায়েস
০৭. ধুমপান, কার্বন-মনো ডাইঅক্সাইড তৈরি করে হিমোগ্লোবিনের অক্ষিজেন সংবহন কমিয়ে দেয়। ফলে হার্টের অ্যাটাক, হার্ট ফেইলিউর এমনকি আকস্মিক কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হতে পারে।

আরও পড়ুনঃ হৃৎপিন্ড সুস্থ রাখার ২০টি টিপস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

16 + 11 =

x

Check Also

জামালগন্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বৃষ্টির দিনেও রুগীদের ভীড়

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন19         19Sharesশফিউল আলম বিশ্বম্ভরপুর, সুনামগন্জ: সুনামগন্জের জামালগন্জ উপজেলা ...

জেনে নিন- উচ্চতা অনুযায়ী একজন মানুষের আদর্শ ওজন কত হওয়া উচিত?

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন14         14Sharesএকজন মানুষের তাঁর উচ্চতা অনুযায়ী আদর্শ ওজন ...

ইবিতে ক্যাপের উদ্যোগে স্তন ক্যান্সার সচেতনতা দিবস পালিত

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন           মুরতুজা হাসান, ইবি: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) ...

কমিউনিটি ক্লিনিকের সাথে সংযোগ স্থাপন কর্মশালা

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন11         11Shares জি,এম মিঠন, নওগাঁ: নওগাঁ সদর উপজেলার ...

জোড়া লাগানো যমজ শিশু ঢাকা মেডিকেলে

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন52         52Sharesজে.জাহেদ, চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম ফটিকছড়ি উপজেলার কাঞ্চননগর ইউনিয়নের ...

চিকিৎসার জন্য মানবিক সাহাজ্যের আবেদন

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন15         15Sharesএম. পলাশ শরীফ, বাগেরহাট: বাগেরহাট জেলার মোরেলগঞ্জ ...