মাত্রাতিরিক্ত লবণ খেলে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গের ক্ষতি হয়

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
  • 322
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
    322
    Shares

মাত্রাতিরিক্ত লবণ খেলে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গের ক্ষতি হয়

আপনি যদি “লবণ-সংবেদী” (Salt Sensitive) না-ও হন, অর্থাৎ লবণ খেলে আপনার রক্তচাপের হেরফের না-হয়, তাহলেও অতিরিক্ত লবণ খাওয়ার কারণে আপনার রক্তনালি (Blood Vessels), হৃৎপিন্ড (Heart), কিডনি (Kidney) এবং মস্তিষ্ক (Brain) ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

অতিরিক্ত লবণ দেহের কী ধরনের ক্ষতিসাধন করে?

১.    অতিরিক্ত লবণ রক্তচাপ বাড়িয়ে দিতে পারে যা কিডনির রোগ ও কিডনির নিস্ক্রিয়তার কারণ।

২.    কিডনি পীড়ানগ্রস্ত (Stressed) হতে পারে যা থেকে হতে পারে কিডনির রোগ ও কিডনির নিস্ক্রিয়তা।

৩.    গায়ে পানি জমার কারণে আপনার স্ফীতির অনুভূতি হয় এবং পা ফোলে যায়।

৪.    ডোপামাইন নিঃসৃত হয় এবং আপনাকে আরো বেশি লবণ খাওয়ার তাগিদ দেয়।

৫.    কানে  তরল জমা হতে পারে না মেনিয়ার রোগ (Menier’s disease) ডেকে আনতে পারে।

৬.    পাকস্থলীর দেয়াল উপদাহিত (Irritated) হতে পারে যা আপনাকে পাকস্থলির ক্যান্সারের ঝুঁকিতে ফেলে দেয়।

৭.    আপনার হাড়ের কেলসিয়াস হ্রাস পায় যার পরিণতিতে হতে পারে অস্থিক্ষয় (Osteoporosis) রোগ

উপরোক্ত অভিমত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডেলাওয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীদের। তারা সাক্ষ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে এই অভিমত ব্যক্ত করেছেন যে, অতিরিক্ত লবণ গ্রহণের কারণে অন্তঝিল্লি তথা এন্ডোথেলিয়াম (Endothelium – রক্তনালীর অভ্যন্তরীণ দেয়াল যা রক্ত জমাট বাঁধা ও অনাক্রম্য কার‌্যাবলীতে সহায়তা করে)-এর স্বাভাবিক কার‌্যাবলী বিঘ্নিত হয়। তদুপরি, অতিরিক্ত লবণ খাওয়ার ফলে আরো যা ঘটে তার মধ্যে আছে রক্তনালীর বর্ধিত কাঠিন্য (Arterial stiffness), কিডনি ও হৃৎপিন্ডের কার‌্যাবলী দুর্বল হয়ে যাওয়া (Weaken heart and kidney function) এবং সমবেদী স্নায়ু পদ্দতি (Sympathetic nervous system)-এর কার্যক্রমে বিশৃঙ্কলা। এই সমীক্ষা থেকে এটা আরো জোরালো হয়েছে যে, লবণ খাওয়ার ব্যাপারে সতর্ক নজর রাখতে হবে। মার্কিন খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন (US food and drug administration) স্বাস্থ্যবান পূর্ণ বয়ষ্ক ব্যক্তিদের দৈনিক ২,৩০০ গ্রাম লবণ খাওয়ার সুপারিশ করেছেন।

 

আরও পড়ুনঃ এন্টিহিস্টামিন সম্পর্কে জানি।

গণ সচেতনতায় ডিপিআরসি হসপিটাল লিমিটেড

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

13 + one =